মুলাদী উপজেলার সাংবাদিকদের নিয়ে জাপা’র সাধারণ সম্পাদক আরিফ সরদারের কুটুক্তি, সাংবাদিক মহলের ক্ষোভ

Share to Social network.
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

মুলাদী প্রতিনিধিঃ
বরিশালের মুলাদীতে উপজেলায় কর্মরত সাংবাদিকদের নিয়ে কুটুক্তি করেছেন উপজেলা জাতীয় পার্টি (জাপা)’র সাধারণ সম্পাদক ও ৯ নং পৌর কমিশনার আরিফ সরদার । তিনি বলেন- মুলাদী উপজেলার সাংবাদিকদের টাকা দিয়ে কেনা যায় !

ঘটনাসূত্রে জানাযায়- কিছু সাংবাদিক তার বিরুদ্ধে চালচুরী, টি.আর এর অর্থ আত্মসাৎ, পৌরসভার বিভিন্ন কাজে দুর্নীতি, নিজের হস্তক্ষেপে অপ্রাপ্তবয়স্কদের বয়স বাড়িয়ে জন্ম নিবন্ধন তৈরি, নারী নির্যাতনসহ বিভিন্ন অপকর্ম সম্পর্কে অবগত হলে ঘটনাগুলোর সত্যতা যাচাই-প্রক্রিয়া শুরু করেন। বিষয়টি তিনি জানতে পেরে সাংবাদিকদের প্রতি হিংসাত্মক ধারনা পোষন করেন। গত ১৪ ই জুন মুলাদী উপজেলা জাতীয় পার্টির সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা হারুন অর রশিদ খান এর এশিয়া টিভিতে সাক্ষাৎকার নেওয়া হলেও তার সাক্ষাৎকার নেওয়া হয়নি, এনিয়েও সাংবাদিকদের প্রতি ক্ষুদ্ব ছিলেন তিনি। আজ ১৭ জুন উপজেলার বিভিন্ন ইউনিয়ন থেকে আগত জাপা’র নেতাকর্মীদের সামনে তিনি বলেন- মুলাদী উপজেলার সাংবাদিকদের টাকা দিয়ে কেনা যায় !

বর্তমানে বরিশাল-৩ (মুলাদী-বাবুগঞ্জ) এর সংসদ সদস্য জাতীয় পার্টির গোলাম কিবরিয়া টিপু । ফলে উপজেলায় যেসকল বরাদ্দ আসে, তার সিংহভাগ চলে যায় মুলাদী পৌরসভার ৯নং ওয়ার্ডে।

সম্প্রতী সাধারণ সম্পাদক আরিফ সরদার সরকারী ঘর পেয়েছেন ১৯টি, ৫টি গভীর নলকুপ, ৮ বান টিন, ৫ টি আর, ৫টি কাবিখা, সৌর প্যানেল ও অসংখ্য স্ট্রিভ লাইট সহ সকল উপজেলার বরাদ্ধের বড় অংশ চলে যায় পৌরসভার ৯নং ওয়ার্ডে। এসকল বরাদ্দ আবার চলে যায় নিজের নিকটাত্বীয়দের মাঝে, ফলে প্রকৃত ভূক্তভোগীতো দূরের কথা, জাতীয় পার্টির নেতাকর্মীরাও পাচ্ছেনা । প্রশ্ন উঠেছে – যদি একটি ওয়ার্ডেই এত বরাদ্দ আসে তবে অন্যান্য পৌর ওয়ার্ড কমিশনাররা কী দোষ করেছেন।

উপজেলা জাপা’র এক নেতা বলেন-  উপজেলা জাতীয় পার্টির শুনাম, কর্মীদের মুল্যায়ন, সাংগঠনিক ভিত্তি নিজের অর্থ ও শ্রম দিয়ে বজায় রেখেছেন- সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা আলহাজ্ব হারুন অর রশিদ খান।
জাতীয় পার্টির বিভিন্ন ইউনিয়নের নেতাকর্মীর অভিযোগ করে বলেন- আমাদের সাথে সব সময় খারাপ আচরন করেন সাধারণ সম্পাদক। আমরা শুধু এম.পি মহোদয় ও সভাপতি’র মুখের দিকে তাকিয়ে এর প্রতিবাদ করিনা।

সাংবাদিকদের নিয়ে কটুক্তির বিষয়ে মুলাদী সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি তালুকদার খোকন বলেন- সাংবাদিকদের টাকা দিয়ে কেনার সামর্থ কারো নেই। তার এমন হীন মানষিকতার পরিবর্তন আনতে হবে। স্থানীয় সাংবাদিকগন বলেন তার এহেন মন্তব্যের জন্য সাংবাদিকদের নিকট ক্ষমা চাইতে হবে, অন্যথায় সাংবাদিকরা তার বিরুদ্ধে আইনী প্রক্রিয়ায় যাবে। সাংবাদিকরা তার এমন মন্তব্যের নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছেন। (এসকল এবিষয়ে বিভিন্ন পত্রিকার ক্রাইম রিপোর্টারদের সমম্ময়ে অনুসন্ধান প্রক্রিয়া চলমান রয়েছে, ২য় পর্বে অনুসন্ধানী রিপোর্ট প্রকাশ করা হবে)

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *