হবু প্রেসিডেন্টের স্ত্রীকে এ কেমন উপহার!

0
32

নিউজ ডেস্ক : মেলানিয়া ট্রাম্প। আসলে মিসেস ডোনাল্ড ট্রাম্প। আদতে ছিলেন যুগোস্লোভিয়ার বাসিন্দা। তারপর ভেঙে টুকরো হওয়া বসনিয়ার। প্রেসিডেন্ট ভোটে ট্রাম্প জিতলে মেলানিয়াই হবেন মার্কিন ফার্স্ট লেডি। জয়ের আগাম শুভেচ্ছাসহ মেলানিয়াকে দুজোড়া বাহারি জুতো উপহার পাঠালেন বসনিয়ার একটি বিখ্যাত জুতো কারখানার শ্রমিকেরা।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পরের যুগোস্লোভিয়া আর নেই। যুগোস্লোভিয়া ভেঙে হয়েছে একাধিক দেশ। এরই অন্যতম বসনিয়া-হার্জগোভিনা। বসনিয়ার চোখ ধাঁধানো, অভিজাত এলাকা বাঞ্জা লুকা। এই এলাকায় রয়েছে ফ্যাশনেবল জুতো তৈরির একটা কারখানা। দিনরাত রীতিমতো ব্যস্ততা এই কারখানায়।

ফ্যাশনেবল জুতোর ভিড়ে বিশেষ নজর কাড়ছে দুজোড়া জুতো। দুটোই চোখধাঁধানো। তবে দেখলেই বোঝা যায়, এক জোড়া জুতো যত্রতত্র ঘুরে বেড়ানোর জন্য। আরেক জোড়া পার্টিতে পরার জন্য হাই হিল। এ জুতোয় রয়েছে হার্জগোভনিয়ার বিশেষ নকশার কাজ, যে শিল্পকর্মকে হেরিটেজের স্বীতৃতি দিয়েছে ইউনেস্কো।

কিন্তু বিশেষ জুতো জোড়া তৈরি হয়েছে কার জন্য? তিনি মেলানিয়া ট্রাম্প, মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে রিপাবলিকান প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্পের স্ত্রী। মেলানিয়া জন্মেছিলেন অবিভক্ত যুগোস্লোভিয়ায়। গৃহযুদ্ধের জেরে নব্বই সালে যুগোস্লোভিয়া ভেঙে জন্ম হয় বসনিয়ার। মেলানিয়া ছিলেন বসনিয়া অংশের বাসিন্দা।

এরপর ভাগ্যান্বেষনে পাড়ি দেন আমেরিকায়। এখন তিনি ধনকুবের ডোনাল্ড ট্রাম্পের সহধর্মিনী। দেশের মেয়েকে তাই দুজোড়া বাহারি জুতো উপহার পাঠাচ্ছেন বাঞ্জা লুকার শু ফ্যাক্টরির কর্মীরা।

বসনিয়ায় তৈরি জুতো পড়ে গোটা মার্কিন মুলুক চষে বেড়াবেন তাদের দেশের মেয়ে মেলানিয়া, এটাই শু ফ্যাক্টরির কর্মীদের অহংকার। এরা কিন্তু প্রবলভাবে হিলারি ক্লিন্টনের বিরোধী। কারণ নব্বই সালে গৃহযুদ্ধে ক্ষতবিক্ষত বসনিয়া-হার্জগোভিনায় ন্যাটো বাহিনী বোমা ফেলেছিল তৎকালীন মার্কিন প্রেসেডেন্ট বিল ক্লিন্টনের মদদে। বোমা বর্ষণে মৃত্যু হয়েছিল অসংখ্য বসনিয়ান সার্বদের। সেকারণেই মার্কিন প্রেসিডেন্ট পদে হিলারিকে না-পছন্দ বাঞ্জা লুকার বাসিন্দাদের।

মেলানিয়া ট্রাম্পের জন্য জুতো তৈরি। যতœ করে বিশেষ ভাবে তৈরি করা বাক্সে প্যাকিং করা হয়েছে জুতো। বাক্সে রয়েছে বাঞ্জা লুকার চার্চের দৃশ্য। এরপর সেই জুতো তোলা হল ছোট ভ্যানে। নিজে পুরো বিষয়টি দেখভাল করলেন কারখানার প্রবীণ ম্যানেজার। এরপর বিশেষ বিমানে এ জুতো জোড়া পাড়ি দেবে মার্কিন মুলুকে।

যদি নির্বাচনে জয়ী হন ডোনাল্ড ট্রাম্প, তবে এই বাহারি জুতো জোড়া পড়ে হোয়াইট হাউসের জমায়েতে হাজির থাকবেন মেলানিন। তেমন স্বপ্ন সত্যি হলে কপাল কী ফিরবে বাঞ্জা লুকার? আসবে দারিদ্রদীর্ণ দেশে মার্কিন সাহায্য? জানেন না কেউই। তবে তাদের দেশের মেয়ে হতে পারেন আমেরিকার ফার্স্ট লেডি, এই স্বপ্নে আপাতত বিভোর বাঞ্জা লুকার অনেক মহিলা।

LEAVE A REPLY