‘একজন অভিনেতা হিসেবে যৌথ প্রযোজনা ছবির প্রস্তাব পেতেই পারি’

0
38
মিশা সওদাগর। বতর্মান সময়ে তিনি অভিনেতার পাশাপাশি শিল্পী সমিতির সভাপতি পরিচয়টি বহন করছেন। তাই অভিনয়ের পাশাপাশি অতিরিক্ত দায়িত্ব নিয়ে ব্যস্ত তিনি। অন্যদিকে শোনা যাচ্ছে যৌথ প্রযোজনার চলচ্চিত্রে অভিনয় করছেন তিনি। সার্বিক এই বিষয়গুলো নিয়ে তিনি কথা বলেছেন বিনোদন প্রতিদিনের সাথে—
কেমন আছেন?
ব্যস্ততার মধ্যেও ভালো আছি।
চলতি সময়ে ব্যস্ততা প্রসঙ্গে বলুন—
১৫ জুন চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির ইফতার পার্টি। এটি আমাদের নব-নির্বাচিত কমিটির প্রথম ইফতার পার্টি। এই অনুষ্ঠানকে সফল করাসহ শিল্পী সমিতির আরো বিভিন্ন কাজ নিয়ে ব্যস্ত। আজ (গতকাল) বিকেলে আমাদের একটি মিটিং আছে, ইফতার পার্টিকে উপলক্ষ করে এই মিটিংটি ডেকেছি।
শিল্পী সমিতির ব্যস্ততার পাশাপাশি চলচ্চিত্রে সময় কেমন দেওয়া হচ্ছে?
এখন সমিতি নিয়েই বেশি ব্যস্ত। ইন্ডাস্ট্রির কল্যাণেই সমিতিকে সময় দিচ্ছি। অভিনয়ে সময় দিচ্ছি না তাও নয়। ‘বাহাদুরী’ শিরোনামের একটি ছবির শুটিং করছি। ছবিটিতে সাইমন সাদিক, পরীমনি, জায়েদ খান, নবাগত মৌ খানসহ আরো অনেকই অভিনয় করছে। এফডিসিতে শুটিং হচ্ছে সিনেমাটির। রোমান্টিক-অ্যাকশন ঘরানায় ছবিটি নির্মাণ করা হচ্ছে। পুরোদমে দর্শকরা আপনাকে আবার কবে পাচ্ছেন—
আশা করছি ঈদের পরই সিনেমায় আগের মতো কাজ শুরু করতে পারবো। হাতে অনেকগুলো সিনেমার কাজও রয়েছে। সেগুলোতে হাত দিবো। তবে যেহেতু আমি সমিতির সভাপতি নির্বাচিত হয়েছি আমার অনেক দায়িত্ব আছে। অভিনয়ের পাশাপাশি আমাকে চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতি নিয়েও কাজ করতে হবে।
যৌথ প্রযোজনা চলচ্চিত্র নিয়ে বেশ কিছুদিন ধরেই বিভিন্ন বিতর্কিত খবর পাওয়া যাচ্ছে। ঠিক এমন সময় আপনার যৌথ প্রযোজনার ছবিতে অভিনয়ের খব শোনা যাচ্ছে। কী বলবেন?
‘চালবাজ’ শিরোনামের যৌথ প্রযোজনার ছবিটি নিয়ে আমার সাথে পরিচালকের কথা হয়েছে। আমার কাছে কতো পরিচালকইতো ছবির প্রস্তাব নিয়ে আসতে পারে।  আমার পছন্দ হলে করি, না হলে ফিরিয়ে দেই। ছবিটির স্ক্রিপ্ট এখনো হাতে পাইনি। স্ক্রিপ্ট দেখে সব ঠিক থাকলে আমি অভিনয় করবো। আমি একজন অভিনেতা হিসেবে যৌথ প্রযোজনা ছবির প্রস্তাব পেতেই পারি।  ‘চালবাজ’-এ অভিনয় করছি, এটা আমার কাছে কোনো বিশেষ কিছু নয়! এটা নিয়ে এখনো নিউজ হওয়ার কিছু নেই। যখন অভিনয় করবো, ভেবে-চিন্তেই করবো।
যৌথ প্রযোজনার ছবিগুলো কিন্তু এখন নিয়ম না মেনেই হচ্ছে, এই বিষয়ে আপনিও সোচ্চার ভূমিকায় ছিলেন। সেই ক্ষেত্রে নতুন কোনো ছবি যে নিয়ম মেনে হবে এমনটা আশা করা যায়?
যৌথ প্রযোজনায় বর্তমানে যে ছবিগুলো নির্মিত হচ্ছে সেগুলোর বেশির ভাগই নীতিমালা মানছে না এটা সত্য। তবে এ ঘরানা থেকে তো বেরিয়ে আসা দরকার। ‘চালবাজ’ ছবিতে যদি নীতিমালা না মানে তাহলে আমি কাজ করবো না। বাংলাদেশের শিল্পী আর ওপার বাংলার শিল্পী সমান হলেই এই ছবিতে সাক্ষর করবো। তবে যাই হোক, নীতিমালার বাইরে যাবো না।
শিল্পী সমিতির এই বিষয়ে পদক্ষেপ কেমনটা থাকবে?
শতভাগ পদক্ষেপ থাকবে। আমরা যেমন ন্যায়ের পক্ষে তেমনি অন্যায়ের বিপক্ষে।
ইত্তেফাক

LEAVE A REPLY