বিজয়ের দিনে – একটু ভেবে দেখি!

0
46

…..মজুমদার মোস্তাফিজ মনির
ব্যুরো চীফ, বরিশাল
দৈনিক জরুরী সংবাদ
“উদয়ের পথে শুনি কার বাণী, ভয় নেই ওরে ভয় নেই
নিঃশ্বাসে প্রান যে করেছে দান, ক্ষয় নেই ওরে ক্ষয় নেই”
বঙ্গবন্ধু কারো একার সম্পত্তি নয়, নয় কোন জেলার একক সম্ভ্রম। বঙ্গবন্ধু সাড়া বাংলার ঐতিহ্য বা ইতিহাস, যার ডাকে সাড়া দিয়েছিল সেদিনের সাড়ে সাত কোটি মানুষ। আজ কেন ভাগভাগি করি লাল-সবুজ শোভিত বাংলার মানচিত্রকে।
সেদিনের সেই স্বল্প শিক্ষিত অমানুষের না বুঝে বলা “গোপালী” ব্যঙ্গক্তির জন্যই কি বিভক্তিতে রুপান্তরিত হয়ে যাবো আমরা সবাই। বঙ্গবন্ধুর তথা তারই তনয়ার তো এমন কোন উক্তিতে উপনীত হয়নি, তারা কোন জেলা নয়, নয় কোন বিভক্তি, উন্নয়নের ধারাবাহিকতায় সাড়া বিশ্বের মানচিত্রে একটি নাম একটি সত্তা একটি ভূ-খন্ডের নাম স্বর্ণাক্ষরে লিপিবদ্ধ হবে, এইতো তাদের স্বপ্ন, চরম চাওয়ার পরম পাওয়া আমার সোনার বাংলাদেশ।
নয় গোপালগঞ্জ, নয় বগুড়া কিংবা রংপুর, এদেশ তোমার আমার যে দেশের জন্য যুদ্ধ করেছে আমর পিতা, শহীদ হয়েছে স্বজন, সভ্রম হাড়িয়েছে আমার মা-বোন, সেই স্বাধীনতাকে সংকীর্ন করে দেখ না আমার প্রিয় জন। রাজ পথে নয়, আনাচে কানাচে শুনি আমরা গোপালগঞ্জের লোক। বড়াই করে নয় দয়া করে হলেও বলি, আমার নেতা বা নেত্রীকে স্বল্প পরিসরের মহিয়সী করো না, সে মহিয়ান, সে গড়িয়ান, সারা বাংলার। এমনকি সারা পৃথিবীতে মাথা উচুঁ করে বলার প্রেক্ষাপট সৃষ্টি করেছেন মহান নেত্রী আমার। দুঃসাহসিক কর্ম পরিকল্পনা বাংলার ভূখন্ডকে সারা বিশ্ব্ েতুলে ধরেছেন। ইসলাম মানবতার বাইরে নয়, সার্বিক উন্নয়নের গতিধারা কোন ষড়যন্ত্র যেন মন্থর না হয়। আশা করি আমরা সবাই সেচ্ছার হই, আগামী দিনে ভবিষ্যত প্রজন্মকে উপহার দিয়ে যেতে পারি একটি হিংসা-বিদ্বেষ বিদুরীত সোনার বাংলাদেশ। পরিস্থিতির প্রেক্ষাপটে এমনই জায়গায় উপনীত আমরা ক্ষমতা অপব্যাবহারের জন্য এখন “গোপালী” সাঁজি। তাই সচেতন হই প্রতিবাদের ছলে আমরা সবাই, আমাদের জয়গান হোক, এ দেশ তোমার আমার স্বর্গাদ্বপি গরিয়াসী নেতার বজ্র কণ্ঠের উপহার। নেত্রীর আঁচলে বাঁধা সুখ-দুঃখের সোনার বাংলাদেশ। কষ্ট করে হলেও বিজয়ের দিনে একটু ভেবে দেখ আমরা সবাই…………

LEAVE A REPLY