অাধুনিকতার মহানায়ক ময়মনসিংহ জেলা পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলাম বিপিএম পিপিএম

0
738
সুমন ভট্রাচার্য্য ভ্রাম্যমান প্রতিনিধি :
  ময়মনসিংহ জেলা প্রতিষ্ঠিত হয় ১লা মে১৭৮৭ সালে।১৮৬৪ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে এই জেলার প্রথম পুলিশ সুপার নিযুক্ত হন মিষ্টার এইচ,এম,রোল অাইপিএস। সে সময় থেকে ময়মনসিংহ জেলা পুলিশের কার্যক্রম শুরু হয়।প্রতিষ্ঠিত হয় ময়মনসিংহের পুলিশ লাইন ।বর্তমানে ময়মনসিংহ জেলা অায়তন-৪৫৫৮বর্গ কিঃমিঃ,জনসংখ্যা – ৫১,১০২৭২জন,কর্মরত পুলিশি জনবলের সংখ্যা-১৮৪১জন,মোট থানা-১৪টি,কোতোয়ালী সদর, মুক্তাগাছা,নান্দাইল,গৌরীপুর, ঈশ্বরগঞ্জ, হালুয়াঘাট, ফুলপুর,তারাকান্দা, ধোপাউরা,ফুলবাড়ীয়া,ভালুকা,ত্রিশাল,গফরগাঁও, পাগলা থানা সহ মোট ১৪টি থানা রয়েছে।অাধুনিকতার  মহানায়ক যুদ্ধ ঘোষনা করে বলেন,হয় মাদক,মলমপার্টি,অজ্ঞানপার্টি থাকবে  না হয় অামি থাকব এ কথা বলে ও অালোচনায় অাসেন অাধুনিকতার মহানায়ক  সৈয়দ নরুল ইসলাম বিপিএম, পিপিএম।
ময়মনসিংহে ০২/০৮/২০১৬ইং তারিখ জনাব সৈয়দ নুরুল ইসলাম বিপিএম,পিপিএম-৯৫তম পুলিশ সুপার হিসাবে যোগদান করেছেন ময়মনসিংহে। ময়মনসিংহের জেলা অপরাধ নির্মুলে বেশ কঠিন ময়মনসিংহে  কর্মরত পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলাম বিপিএম পিপিএম।যেমন শক্ত তেমনি নরম মহানায়ক সৈয়দ  নরুল ইসলাম তারই সাথে অসহায়, নির্যাতিত, নিপীড়িত মানুষের পাশে দাঁড়াতে তিনি নিবেদিত একজন অতুলনীয় ব্যাক্তি ।এ অবস্থায় একজন অাধুনিকতার মহানায়ক জেলা পুলিশ সুপার হিসেবে মানুষের মনে ঠাঁই করে নিয়েছেন নিজেকে তিনি। মহানায়ক পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলাম বিপিএম পিপিএম বাংলাদেশের পুলিশের ইতিহাসে সর্ব কনিষ্ঠ ব্যাক্তি হিসাবে বাংলাদেশ পুলিশ এ্যাসোসিয়েশনের নির্বাচিত জেনারেল সেক্রেটারীর দায়িত্ব ও পালন করেন তিনি।বর্তমানে পুলিশ সুপার পদ মর্যাদায় বাংলাদেশ পুলিশের বৃহত্তর ময়মনসিংহ জেলার পুলিশ সুপার(এসপি) হিসাবে তিনি দ্বায়িত্ব পালন করছেন।
ময়মনসিংহে যোগদানের পর পরই ময়মনসিংহের গুরুত্বপূর্ণ অংশ ছিনতাইকারী, মলমপাটি,অজ্ঞানপাটি ৫৫টি কে গ্রেফতার করছে।তার কথা অপরাধীদের কোন ছাড় নেই,জঙ্গী সুত্র ময়মনসিংহ থেকে তানিম সহ তার সহযোগীদের গ্রেফতারকে কেন্দ্র করে,ময়মনসিংহ ত্রিশাল থেকে জঙ্গী সালাউদ্দিন ফারুক কে গ্রেফতার করে।এই অভিযান সফল করে ময়মনসিংহ সকল পেশাজীবী, জনতার মুখে মুখে এক অনন্য প্রসংশনীয় (ফাটাকেষ্ট)ময়মনসিংহের পুলিশ সুপার সৈয়দ নরুল ইসলাম বিপিএম, পিপিএম।
পুলিশ জনতা,জনতাই পুলিশ এরি মহানায়ক পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলাম বিপিএম পিপিএম  কিছুদিন অাগে, ফুলবাড়ীয়ার বিরাঙ্গনা শহীদ জায়া জয়ন্তী বালা দেবীর অসহায়ত্বের পাঁশে দাড়ান অাধুনিকতার মহানায়ক জেলা পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলাম বিপিএম পিপিএম । ফুলবাড়ীয়ার উপজেলার বিরাঙ্গনা শহীদ জায়া জয়ন্তী বালা দেবীর অসহায়ত্বের হাতে তুলে দেন ,চাউলের বস্তা,তৈল,চিনি,ডাল,লবন,মরিচ,শাড়ী সহ নগত অর্থ।জায়া জয়ন্তী বালা দেবীকে মাসিক ভাতার কার্ড চালু করে লোকমুখে আলোচনায় আসেন মহানায়ক পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলাম বিপিএম, পিপিএম ।
ওই বিরাঙ্গনা শহীদ জায়া জয়ন্তী বালা দেবীর অসহায়ত্বের দূর করন,অন্যান্য অসহায়ত্ব বিষয় স্থানীয় গণ্যমান্যদের উপস্থিতিতে তুল ধরা হচ্ছে বলে ,সরকারের দেওয়া মাসিক ভাতার কার্ড সঠিক মত পাচ্ছে, না পাওয়ার অসহাত্বরা। অসহায়ত্ব অনেকটা কমেও এসেছে বলে জানা যায়।অাধুনিকতার মহানায়ক জেলা পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলাম ময়মনসিংহে
মাদকের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করে  এর প্রতিফলন ঘটিয়ে পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলামের নাম এখন ফাটাকেষ্ট, বলেও শুনা যায় সবার মুখে মুখে।
মাদক নির্মূলে যে কোনো ধরণের কঠিন সিদ্ধান্ত নিতেও পুলিশ পিছু পা হবে না বলে জানান মহানায়ক সৈয়দ নুরুল ইসলাম।
মাদকের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষনা করায় জেলায় এক মাদক ব্যবসায়ীরা কোন ঠাঁসা। মাদক ছেড়ে স্বাভাবিক জীবনে যাওয়ার অঙ্গীকার করে অনেক বড় বড় মাদক ব্যবসায়ী আত্ম সমর্পন করেছে।এবং অাধুনিকতার মহানায়ক ময়মনসিংহ জেলা পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলাম বিপিএম, পিপিএম  মাদক ব্যবসায়ীদের মাঝে সেলাই মেশিন, রিক্সা সহ নগত টাকা ও তুলেদেন মাদক ব্যবসায়িদের হাতে। পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলাম বিপিএম, পিপিএম ময়মনসিংহের অাধুনিকতার মহানায়ক ও বলে শুনা যায়। এদিকে গরীব, শ্বাসকষ্ট রুগীদের পাশে দাঁড়ান তিনি।কিছুদিন অাগে তার সম্মেলন কক্ষে মাসিক বর্ধিত সভা চলাকালে ফাটাকেষ্ট,পুলিশ সুপার সৈয়দ নূরুল ইসলামের চোখে পড়ে  শিশু বাচ্চাকে কোলে নিয়ে দাঁড়িয়ে ভিক্ষা চাইছে এক মা,বর্ধিত সভায় ২ মিনিট সময় চেয়ে মহানায়ক অাসেন শিশু বাচ্চাটির কাছে,তখন তার নিজের মানিব্যাগ থেকে শিশু বাচ্চাটিকে নগত টাকা বের দেন এবং সম্মেলন কক্ষে গিয়ে উপস্থিত থাকা সকলকে কিছু করে টাকা সাহায্য  দিতে বলেন,সকলের টাকা একসাথে করে বিশ হাজার টাকা শিশুটির মায়ের হাতে তুলে পাশে দাঁড়িয়ে প্রশংসা কুঁড়ান মহানায়ক।
অাধুনিকতার মহানায়ক জেলা পুলিশ সুপার,সৈয়দ নুরুল ইসলাম বিপিএম পিপিএম  ময়মনসিংহ শহরের বড় কালিবাড়ী  সোহাগ পার্টি সেন্টার সংলগ্ন মরহুম  এড.অানোয়ারুল হকের বাড়ী থেকে ৭ জঙ্গীদের গ্রেফতার করে হিন্দু ধর্মীয়  অষ্টমী স্নানের অাগের দিন। অভিযান চালিয়ে অাটক করা হয় জঙ্গী বাহিনীকে,কোন বড় ধরনের ক্ষতি হতে পারত বলে ধরনা করেছিলেন সুশীল সমাজের গন্যমান্য ব্যাক্তিবর্গ।জীবন বাজী রেখে ফাটাকেষ্ট দেশ ও দেশের মানুষের নিবেদিত এক মহামানব।
কিছুদিন পরেই মহানায়কের নির্দেশে  ২৩ মে অভিযান করেন ময়মনসিংহের গফরগাঁওয়ের শীর্ষ সন্রাসী অবৈধ চুড়াচালানকারী অস্রধারী ও বিভিন্ন হত্যা মামলা সহ ১৫টি মামলার পলাতক অাসামী অাশরাফুল ইসলাম ঢোলকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হয়েছিল জেলা গোয়েন্দা সংস্থা ডিবি পুলিশ।তৎক্ষানিক অাশরাফুল ইসলাম ঢোলকে সঙ্গে নিয়ে তার ডাকাত দলকে গ্রেফতারের চেষ্টা করা হলে এসময় গুলিবৃদ্ধ হয়ে মারা যায় অাশরাফুল ইসলাম ঢোল।কিন্তুু পরেও পিছু পা ফেলে নি গোয়েন্দা পুলিশ ডিবি,গ্রেফতার করে ৫ ডাকাত সদস্যকে। রক্ষা পায় গফরগাঁও সহ সকল জেলার মানুষ ঢোল বাহিনীর হাত থেকে।গফরগাঁও ও ময়মনসিংহবাসী ফাটাকেষ্ট  পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলাম বিপিএম, পিপিএম কে সু-স্বগত জানিয়ে বলে জেলা পুলিশ সুপার এতো দেখি অাধুনিকতার মহানায়ক।
যোগদানের  পর জেলার সর্বত্র ডাকাতির ঘটনাও কমে গেছে বলে জানা যায়।গত ৮ মে ঘটে যাওয়া ঈশ্বরগঞ্জ মসজিদের ইমামের উপর হামলা পর থেকে অনেকে সমালোচনা করে জেলার অাইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ে।কিন্তুু অনেকের সমালোচনার কাছে হেড়ে যায়নি ফাটাকেষ্ট  পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলাম বিপিএম পিপিএম, তিনি দেখিয়ে দিয়েছেন কিছুদিনের মধ্যে যে অপরাধীদের কোন ছাড় নেই,তিনি বলেছিলেন ৭ দিনের মাধ্যমে ইমামেরর উপর হামলাকারীদের ধরে অাইনের অাওতায় নিয়ে অাসা হবে,তাই করেছেন.  পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলামের  নির্দেশে জেলা গোয়েন্দা শাখা ডিবি পুলিশ সিলেটের কদমতলী এলাকায় অভিযান চালিয়ে জহিরুল হককে গ্রেফতার করেও অালোচনায় সবার মুখে মুখে অাসেন অাধুনিকতার মহা নায়ক এসপি সৈয়দ নুরুল ইসলাম বিপিএম পিপিএম।  এছাড়াও তিনি শারিরীক প্রতিবন্ধী ক্রিকেট দল ও পথ শিশুদের স্কুলকে সহযোগিতা করেন নিয়মিত।
সর্বশেষ তিনি ময়মনসিংহ জেলা পুলিশে তথ্য প্রযুক্তি বিকশিত হচ্ছে জানা যায়।প্রথম বাবের মতো নির্মিত রয়েছে সিসি ক্যামেরায় মিডিয়া সেন্টার।গুরুত্বপুর্ন ময়মনসিংহ ঢাকা মহাসড়কের সিসি ক্যামেরা ৬৫ কিঃমিঃ রোড এলাকায় প্রথম বারের মতো সিসি ক্যামেরা অাওতায় এসেছে। এ মিডিয়া সেন্টার থেকেই তর্থ্য মাধ্যমে কালকেশন দীর্ঘ মহাসড়কটি মনিটরিং করছে পুলিশ।  ময়মনসিংহ থেকে ভালুকা পর্যন্ত সিসি ক্যামেরায়  স্থাপনে সৌন্দর্য্য বর্ধণের কাজ করে আলোচনার জন্মদেন এ অাধুনিকতার মহানায়ক পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলাম বিপিএম, পিপিএম  । পরিকল্পনা ও বাস্তবায়নে অাধুনিকতার নায়ক সৈয়দ নুরুল ইসলাম বিপিএম, পিপিএম।
তিনি বলেন,সিসি ক্যামেরার অাওতায় যদি একটি মোটরসাইকেল চুরি হয় তা অপারেশন শুরু করে ভিডিও ফুটেজ দ্বারা অাটক করতে সক্ষম হব।ত্রিশাল ও ভালুকার মাঝামাঝি যে সমস্ত গার্মেন্টস, কলকারখানা রয়েছে সেখান যদি অসৎ উদ্দেশে কোন কিছু করা হয় তাদের অাইনের অাওতায় অানা হবে।সে যে কেউ হোক না কেন কোন ছাড় দেওয়া হবে না।সর্বশেষ তিনি ময়মনসিংহ পুনাক ওর্য়াকসপ এর কাজে হাত দিয়েছেন,পুলিশ নারীদের পরিবারদের ওখানে সেলাই মেশিন বসিয়ে কাজ করার সুযোগ করে দিয়েছেন।পুনাক ওর্য়াকসপ ময়মনসিংহ সভাপতি- নওরীন হক চৌধুরী,পুনাক ওর্য়াকসপটি শুভ উদ্ভোধন হয় ২৫ ডিসেঃ২০১৬ইং তারিখে। সেখানে মহিলারা রীতিমত পুনাক ওর্য়াকসপ কাজ করছে বলে খবর পাওয়া যায়।পুনাক ওর্য়াকসপটি চালু করেও লোক মুখে অালোচনায় অাসেন অাধুনিকতার মহানায়ক।
২০১৬সালের ২ অাগষ্ট ময়মনসিংহে  পুলিশ সুপার হিসেবে যোগদান করেন সৈয়দ নুরুল ইসলাম। এর আগে তিনি নারায়নগঞ্জে পুলিশ সুপার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।নারায়নগঞ্জ থেকে তাঁর বদলি ঠেকাতে বিভিন্ন কর্মসূচি পালন হওয়ার খবরও পাওয়া যায়। পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলাম যোগদানের পর জেলার সর্বত্র মাদকের ঘটনাও কমে গেছে। বিশেষ করে দিনের বেলাতে শহরের কৃষ্টপুর,ষ্টেশন রোড,বাঘমারা, রেলিমোড়, অালিয়া মাদ্রাসা থেকে মাদক ব্যবসায়িক থাকা ঘটনা একেবারে নেই বললেই চলে। এছাড়া -ময়মনসিংহ – সিলেট মহাসড়কের   এলাকাতেও এখন ডাকাতির খবর খুব একটা পাওয়া যায় না।শহরে ও শহরের বাইরের জায়গাগুলোতে ছিনতাই কারীদের উৎপাত অনেকটা কমেও গেছে। সৈয়দ নুরুল ইসলাম যেমন কঠিন তেমন তার কাজের ফলাফল। এদিকে পুলিশের কাছ থেকে পাওয়া এক পরিসংখ্যান বিশ্লেষণ করে দেখা গেছে, সৈয়দ নুরুল ইসলাম যোগদানের পর অন্যান্য অপরাধমূলক মামলাও কমে গেছে। সৈয়দ নুরুল ইসলামের  প্রায় দুই বছরের আমলে (২৬ অাগষ্ট) আইনশৃংখলার সঙ্গে সম্পৃক্ত যেমন, ডাকাতি, খুনসহ ডাকাতি, ছিনতাই, চাঁদাদাবির মামলা হয়েছে ২২৪টি। অন্যদিকে এর আগের আড়াই বছরে এ ধরণের মামলা হয়েছে ৫০৯টি। এর বাইরে সৈয়দ নরুল ইসলামের আমলে নারী ও শিশু নির্যাতন, অপহরণ, পুলিশের উপর হামলা ইত্যাদি মামলা হয়েছে ৭৬০০ টি। অন্যদিকের এর আগের আড়াই বছরে মামলা হয়েছে ৮৩৪৪টি মত।
জানতে চাইলে ময়মনসিংহ জেলা নাগরিক অান্দোলনের সভাপতি এড. অানিসুর রহমান খাঁন-সাধারন সম্পাদক বীরমুক্তিযোদ্ধা অাবুল কালাম অাজাদের জানান,সৈয়দ নুরুল ইসলামের নামে যেমন তার কর্মকান্ডে দ্বায়িত্বশীল বলে ,  বর্তমান পুলিশ সুপারের প্রশংসা করেন। ময়মনসিংহ জেলার হিন্দু,বৌদ্ধ, খ্রিষ্টান ঐক্য পরিষদের সভাপতি এড.শ্রী রাখাল চন্দ্র সরকার-সাধারন সম্প্রাদক এড.সৌমেন্দ্র কিশোর চৌধুরী মহানায়কের প্রশংসা করেন, মানবাধিকার অাইন সহায়তা কেন্দ্র (অাসক)ফাউন্ডেশনের ময়মনসিংহ বিভাগীয় ভাইস-প্রেসিডেন্ট,জেলার সভাপতি ,জাতীয় দৈনিক সন্ধ্যাবাণী  ভ্রাম্যমান প্রতিনিধি, বাংলাদেশ  রির্পোটাস ক্লাবের অাজীবন সদস্য,বাংলাদেশ প্রেস কাউন্সিল প্রত্যয়ন পত্র প্রাপ্ত,ঢাকা মহানগর অাইন সহায়তা কেন্দ্র (অাসক)ফাউন্ডেশনের উপদেষ্টা, দ্যা ডেলি প্রেজেন্ট টাইম ভ্রাম্যমান প্রতিনিধি সুমন ভট্রাচার্য্যর মতে,বাস্তবে দেখছি ৩০শে ডিসেঃ২০১৭ বার্ষিক পুলিশ সমাবেশে মাননীয় পুলিশ পরিদর্শক  ইনস্পেক্টর জনাব শহীদুল হক স্যার সরাসরি ময়মসিংহ পুলিশ লাইন বার্ষিক অনুষ্টানের মচ্ছে বলে ছিলেন, অাজ থারটি ফাষ্টডে নাইটেতে সৈয়দ নুরুল ইসলামের  কথা রাখতে গিয়ে থারটি ফাষ্টটেতে অামি সহ অামার সহ ধর্মিণী শামসুনাহার সভাপতি পুনাক বাংলাদেশ, অাজ ময়মনসিংহ পুলিশ লাইনে বার্ষিক সমাবেশে উপস্থিত হয়েছি,কিন্তুু বাংলাদেশের কোথায় ও ডিজে পার্টির অনুমতি অামি দেইনি,কিন্তুু অাজ ময়মনসিংহের পুলিশ বার্ষিকী অানুষ্ঠানের সৈয়দ নুরুল ইসলাম অাইজিপি শহীদুল হক  স্যারকে বলেন, স্যারক অাজ কে পুলিশ বার্ষিকীতে অামরা ময়মনসিংহ পুলিশ লাইননে ডিজে পাটির ও অায়োজন করেছি,তখন অাইজি স্যার এ কথা শুনতেই একটু থেমে গেলেও কিছুতেই না করতে পারলেননা মহা পুলিশ পরির্দশন শহীদুল হক স্যার,তিনি শুধু বললেন বাংলাদেশের কোথাও অনুমতি দেয়নি ডিজে পার্টির। কিন্তুু অামি সহ অামার সহধর্মিণী অাজ ময়মনসিংহ পুলিশ বার্ষিকীতে উপস্থিত, সৈয়দ নুরুল ইসলামের চাওয়া অামার কাছে ডিজে পার্টি চলার অনুমতি দেয়ার,  তাই সৈয়দ নুরুল ইসলামের কথা রাখতে গিয়ে মাইকে ঘোষনা করেন অাইজি স্যার ডিজে পাটি চলবে নুরুল ইসলাম অাজ কিন্তুু কোন হট্রগোল যেন না হয়,তখন সৈয়দ নুরুল ইসলাম বিপিএম, পিপিএম বলেন, স্যার ময়মনসিংহের মানুষ ভদ্র নম্র এই কথা শুনে অানন্দতে মেটে উঠেন, সকল পুলিশ কর্মকতা ও উপস্থিত থাকা দর্শক।যা দেখলাম অামি অাইজি মহোদয় শহীদুল হক স্যার ও তার সহধর্মিণী সহ সৈয়দ নুরুল ইসলাম কে অনন্য পুলিশ সুপার হিসাবে দেখেন স্যার শহীদুল হক। এবং সুন্দর একটি অনুষ্টান উপহার দেন মহানায়ক  পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলাম।
,এ যাবতকালে তাঁদের দেখা সেরা ও অন্যরকম পুলিশ সুপার হলেন সৈয়দ নুরুল ইসলাম। মানুুষের মুখে মুখে অনন্য পুলিশ সুপার অাধুনিকতার মহানায়ক হিসাবে পরিচিত,কেহ অাবার বলে ফাটাকেষ্ট নুরুল ইসলাম। বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশনের  ময়মনসিংহ বিভাগের অাহ্বায়ক , সভাপতি কৃষ্টপুর ক্লাব ও বিশিষ্ট ব্যবসায়ী অাবুল কালাম রাসেল (ভিপি,রাসেল) বলেন, ‘বর্তমান পুলিশ সুপার গতানুগতিক পুলিশিংয়ের বাইরে কিছু ভালো কাজ করে যাচ্ছেন। উনার এ ভালো উদ্যোগকে সাধুবাদ জানাই।’ সৈয়দ নুরুল ইসলাম অাধুনিকতার মহানায়ককে সাদুবাদ জানায়,শ্রীশ্রী লোকনাথ ব্রক্ষচারী মন্দির উপ-কমিটির অাহ্বায়ক শ্রী উত্তম চক্রবর্তী রকেট।ময়মনসিংহ শহরের সাবেক ৮নং ওর্য়াডের কাউন্সিলর অসিত রঞ্জন দত্ত বাবন বলেন,মহানায়কের কাজের সাফলতা দেখে অামি ও তার এত বড় বড় দ্বায়িত্ব,সাহসী, সৎ নিষ্ঠাবান মহানায়ককে সাধুবাদ জানায়। অাধুনিকতার মহানায়ক সৈয়দ নুরুল ইসলামের সহকর্মী ও ময়মনসিংহের অতিরিক্তি পুলিশ সুপার মো. নূরে অালম স্যার বলেন ‘ভালো কিছু করতে হলে সবার আগে ভালো মানুষ হতে হবে। আর আমাদের এসপি স্যারের মাঝে একজন ভালো মানুষের সব ধরণের গুন আমি দেখতে পেয়েছি। পেশাগত দায়িত্বের বাইরে যেটা তিনি করছেন সেটা পুলিশে বিভাগের জন্যও গৌরবের।’
একটি অপরাধমুক্ত ময়মনসিংহ জেলা গড়তে অাধুনিকতার মহানায়ক পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলাম জেলার ১৪টি থানার অফিসার ইনচার্জদের মনোবল বাড়ানোর জন্য মাসিক সভাও শুরু করেছেন।প্রতি মাস শেষে জেলা ১৪টি শ্রেষ্ঠ ওসি নির্বাচিত করাও হচ্ছে। এই সফলতার প্রেরনার ফলে ওসিদের কাজ করার বৃদ্ধি পাবে।তারা পাচ্ছে মনোবল শক্তি। এ কারনে ক্রমশ অাইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতির উন্নতি। ময়মনসিংহের পুলিশ লাইন হাসপাতালটি সু -চিকিৎসার জন্য তেমন চালু ছিল না বললেই চলে,কিন্তুু অাধুনিকতার নায়ক সৈয়দ নুরুল ইসলাম যোগদানের পরপরই ভাল সু-চিকিৎসার পুলিশ লাইন হাসপাতালটি পূনরায় চালু করেছে।যে কোন রোগের পরীক্ষার জন্য ৫০ টাকা ফ্রি করে দিয়েছেন পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলাম।
এছাড়াও থানার পুলিশকে জনবান্ধব পুলিশে রূপান্তরিত করছে এবং অব্যাহত রয়েছে।সাধারন জনগন স্বাচ্ছন্দে তাদের মনের কথা গুলো বলতে পারার পাশাপাশি সাধারন মানুষকে সচেতন মুলক সেমিনার করেন মহানায়ক পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলাম বিপিএম পিপিএম। বর্তমান সরকারের ভাবমূর্তি রক্ষার্থে ময়মনসিংহ জেলার অাইনশৃঙ্খলা নিয়ত্ননে রাখতে বর্তমান পুলিশ সুপার অাধুনিকতার মহা নায়ক সৈয়দ নুরুল ইসলাম বিপিএম পিপিএম দেশ ও দেশের মানুষের কথা ভেবে অক্লান্ত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন।তিনি জঙ্গী,সন্রাসী,ডাকাত,ছিনতাইকারী,মলমপাটি,অজ্ঞানপাটি,মাদক ব্যবসায়ী গ্রেফতার, ওয়ারেন্ট ভুক্ত অাসামী গ্রেফতার ও অস্র উদ্ধার সহ অপরাধ দমনের মধ্যমে সুনাম অর্জন করে অাধুনিকতার মহানায়কের নাম এখন মানুষের মুখে মুখে ছড়িয়ে পড়ছে বলে জানা যায়।এছাড়াও ময়মনসিংহে বিগতদিনের তুলনায় তার কঠোর হস্থক্ষেপে বন্ধ হয়েছে অাবাসিক হোটেল গুলোর নারীদেহ ব্যাবসা। বন্ধ হয়ে অাসছে মাদক সেবন ও বিক্রয়।অনেকটা কমেও এসেছে ইভটিজিং সহ রাস্তা ঘাটে অসামাজিকতা।
বর্তমান ময়মনসিংহ জেলা অাধুনিকতার সাহসী মহানায়ক পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলাম বিপিএম পিপিএম অাসার পর থেকেই ময়মনসিংহবাসী যেন এক পুলিশের যে দ্বায়িত্ব কর্তব্য তা দেখে  নিরাপত্তার চাদরে বসবাস করছে ময়মনসিংহবাসী।  সৈয়দ নুরুল ইসলাম ছিনতাইকারী,অপহরনকারী,জালটাকা ব্যাবসায়ি, অস্রধারী সন্রাসী,চোর, ডাকাত,নারীপাচার সহ গ্রেপ্তারে বিশেষ অবদান রেখেছেনে।যার ফলে সদর থানা ও পুলিশ বিভাগের প্রতি জনগনের স্বস্তি অাসা ও বিশ্বাসের সৃষ্টি হয়েছে। তার কাজে জনসাধারন যেমনি খুশি তেমনি তার অধীনস্তরাও তার প্রতি সন্তুুষ্ট।একজন সৎ নিষ্ঠাবান, দায়িত্বশীল এসপি হিসাবে ইতিমধ্যে তিনি প্রসংশা সহ ময়মনসিংহবাসীর মনে স্থান করে নিয়েছেন নিজেকে।জানা যায়,জেলা পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলাম যোগদানের পর থেকে তার চৌকস অফিসারদের নিয়ে দিনে রাতে পরিশ্রম করেন।ময়মনসিংহ জেলা পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলাম বিপিএম পিপিএম তার দায়িত্ব পালনে ময়মনসিংহবাসীর দৃষ্টি অাকর্ষন করতে সমর্থক হয়েছেন ভাল কাজ করে।৩০শে জুলাই-২০১৭ইং,ময়মনসিংহে পুলিশ ব্যারাক-২ উদ্ভোধন করেন,প্রধান অতিথিঃ অাসাদুজ্জামান খাঁন এমপি,মাননীয় মন্রী সরাষ্ট মন্রানালয়। সভাপতিত্ব করেন,ময়মনসিংহ পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলাম।
সৈয়দ নুরুল ইসলামের  প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে গত ৩০ জুলাই স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামালের উপস্থিতিতে এক সভায় জেলা আওয়ামী লীগের সাধারন সম্পাদক এড.মোয়াজ্জেম হোসন বাবুল বলেন, ‘ওনার বিভিন্ন সামাজিক কর্মকান্ড দেখে আমি তো মাঝে মাঝে এসপি মহোদয়কে প্রশ্ন করি ময়মনসিংহ থেকে আপনার সংসদ সদস্য নির্বাচন করার ইচ্ছা আছে কি-না।’ তিনি হিন্দু নেতাকর্মীদের নিয়ে পুলিশ সুপারের সম্মেলন কক্ষে শ্রীকৃষ্ণ এর জন্মাষ্টমী নিয়ে অালোচনা করেন তিনি।এবং সুন্দর ও সুষ্টতার মধ্য দিয়ে অনুষ্টানটি শেষ হয়েছে।মহানায়ক সৈয়দ নুরুল ইসলামের তুলনা হয় না বলে জানান ময়মনসিংহবাসী।
সর্বশেষ তিনি স্কুল কলেজ পড়ুয়া ছাত্র ছাত্রীদের বিষয়ে  উদ্যােগ নেন যেন,স্কুল-কলেজ ফাঁকি দিয়ে পার্কে এসে স্কুল-কলেজের ড্রেস পড়া অবস্থায় পার্কে,নাদীর এ পাড়ে ও পাড়ে অাড্ডা বা অসামাজিক কোনো কাজে দেখাগেলে তাদের বিরুদ্ধে অাইনী ব্যাবস্থা নেয়া হবে,বা তাদের পরিবারের না শিক্ষক মহোদয়কে ডেকে এনে তাদের কাছে তুলে দেওয়া হবে।এ বিষয়টি ছড়িয়ে পড়লে ময়মনসিংহবাসীর অালোচনায় ও মুখে মুখে ফাটাকেষ্ট নাম ছড়িয়ে পড়ে।অনেকের প্রশ্ন কে এই ফাটাকেষ্ট? এবং এই অাধুনিকতার মহানায়কে কে স্কুল কলেজ পড়ুয়া ছাত্র ছাত্রীদের অভিবাবক সহ সুশীল সমাজ শুভেচ্ছা ও অভিনন্দন দিয়ে অালোচনায় নিয়ে অাসে ।ফাটাকেষ্ট পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলাম বিপিএম, পিপিএম মহোদয়কে।কমে গেছে পার্কের অসামাজিক ও স্কুলড্রেস পরে অাসা ছাত্র ছাত্রীদের অানাগোনা ও।সর্বশেষ মহানায়ক ফাটাকেষ্ট ২৭.০৮.১৭ তারিখ ভালুকা উপজেলার হবিরবাড়ী ইউনিয়নের ছোট কাশর গ্রামে রোববার ২২ঘন্টা অভিযান চালিয়ে ৩টি বোমা ও ১টি গ্রেনেডসহ বিপুল পরিমান বোমা তৈরি সরঞ্জাম এবং জিহাদি বই উদ্ধার করে।বোমা গুলি বোম ডিসপোজাল একটি দল নিস্কিয় করে।পরে পালিয়ে যাওয়া অালমের স্ত্রী  পারভীনকে তার শিশু সন্তানসহ গ্রেফতার করে অাধুনিকতার মহানায়ক ফাটাকেষ্ট নাম অালোচনায় অাসে মুখে মুখে, শুধু তাই নয় বাংলাদেশ পুলিশের অভিভাবক অাইডল, মহাপুলিশ পরিদর্শক ময়মনসিংহের অাধুনিকতার মহানায়ককে পুরুষ্কারে পুরুস্কৃত করেন। ৩১.০৮.২০১৭ ইং তারিখ ঈদের ঘরফেরা মানুষের যানযট মু্ক্ত নিরশনে ফাটাকেষ্ট নিজে রাস্তায় নেমে যেতে দেখা যায়। ব্রীজের মোড়ে, চরপাড়া মোড় সহ বিভিন্ন স্থানে দেখা যায়।কেহ বলে কে এই পুলিশ অফিসার ব্রীজের মোড়ে যানযট মুক্ত রাখতে নিজে নেমেছে, যে চিনে তারা বলে ফাটাকেষ্ট নিজে নেমে পড়েছে।সর্বশেষ তিনি ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে গরীব রুগীদের পাশে দাড়ান তিনি,ভর্তি থাকা রোগীদের সাথে কথাকথোপন এ মহানায়ক সকলের কাছে প্রসংশা কোড়ান তিনি।পৌর মিলানায়তনে মাদক ও জঙ্গী বিরোধী ওই সভায় উপস্থিত লোকজন বক্তব্যটিকে করতালির মাধ্যমে স্বাগত জানান। এবং অাধুনিকতার মহানায়ক জেলা পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল বিপিএম পিপিএম এর নাম সবার মুখে মুখে ফাটাকেষ্ট নুরুল ইসলাম,অাবার অাধুনিকতার মহানায়ক অনন্য পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলাম।

LEAVE A REPLY